Home / ত্বক / মেকআপ এ খরচ বাঁচাবেন কীভাবে?

মেকআপ এ খরচ বাঁচাবেন কীভাবে?

মেয়েরা সাজতে ভালোবাসে। এই ভালোলাগা বা ভালোবাসা তাদেরকে আলাদা করে শিখিয়ে দিতে হয় না। ছোট থেকেই এটা জন্মে যায়। মা, কাকীমাকে দেখে শুরু হয় নিজেকে সাজানো যা সময়ের সাথে সাথে বাড়তে থাকে। আজকের দিনে বাইরে বেরোলে কোনো প্রসাধন বা মেকআপ ব্যবহার না করে কেউ খুব একটা যায় না। আগের দিনে এই চলন কম থাকলেও বাজারে যত নানান প্রসাধনী সামগ্রী এসেছে, ততো মহিলামহল এর দিকে আকৃষ্ট হয়েছে। এর জন্যে প্রতি বছরে হিসাব করলে হয়তো খরচও খুব একটা কম নয়। প্রতিযোগিতার বাজারে ক্রমাগত বাড়তে থাকে এই প্রসাধনী সামগ্রী বা মেকআপের দাম। বাড়তে থাকে অলিতে গলিতে বিউটি পার্লার। সাধ থাকলেও অনেক সময় অনেকের দাম দিয়ে পার্লার যাওয়ার সাধ্য থাকে না। অনেক সময় সম্ভব হয়না দাম দিয়ে মেকআপের জিনিস কেনা। বাড়তে থাকা প্রতিদিনের খরচে সাজগোজ যেন আপনার কাছে বোঝা হয়ে দাড়াতে থাকে। তাহলে কি করবেন? খরচকে নিজের বাজেটে রেখে আপনার সাজগোজে যাতে বাধা না পরে, তার জন্যে আজ রইলো কিছু টিপস।

১. অপেক্ষাকৃত কম দামি জিনিস কিনুন আমরা সব সময় ভাবি দাম দিয়ে জিনিস কিনলে তা অবশ্যই ভালো হবে। কম দামি জিনিস হয়তো অতটা ভালো নাও হতে পারে। আমাদের এই চিন্তাকে কাজে লাগিয়ে অনেক কোম্পানি নিজেদের প্রোডাক্টের দাম বাড়িয়ে রাখে। কোনো পণ্য কেনার আগে তাই অন্য ব্র্যান্ডের জিনিসের উপাদান গুলো দেখে নিন। একই উপাদান থাকলে শুধু শুধু কেন কোম্পানির নাম দেখে দাম দিয়ে তা কিনবেন?

২. কেনার আগে চিন্তা করুন আমরা অনেক সময়ই একবারে বড়ো প্যাক কেনার জন্যে ভাবি। আমাদের ধারণা থাকে একবারে বেশি পরিমাণ কিনলে কোম্পানি তার দামও কমিয়ে রাখবে। কিন্তু এই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে অনেক সময় ব্র্যান্ড তার প্রোডাক্ট বা পণ্যের দাম বাড়িয়ে রাখে। তাই বড়ো প্যাক বা ফ্যামিলি প্যাক কেনার আগে ভালো করে দেখে নিন। এছাড়াও অনেক সময় আজ যে প্রোডাক্ট কিনছেন, কাল অন্য প্রোডাক্ট বাজারে এলে তা যদি আপনার পছন্দের হয়, তবে আপনার কেনা বড়ো প্যাক কেনা অহেতুক নষ্ট হতে পারে। তাই চেষ্টা করুন স্টোরে গিয়ে স্যাম্পল ফাইল নিয়ে আগে দেখে নেওয়া নাহলে ছোট প্যাক কিনে ব্যবহার করা।

৩. সব জিনিস আপনার জন্যে নয় অনেক সময় আমরা ঠিক বেঠিক না ভেবে কোনো পণ্য কিনে নি। আমাদের পরিচিত কাউকে ব্যবহার করতে দেখে যদি ভালোলাগে, আমরাও মনস্থির করি কিনে নেওয়ার। সেটা চোখের কাজল, মাসকারা, লিপস্টিক বা অন্য যেকোনো কিছু হতে পারে। এটা বোঝার চেষ্টা করুন যে সব প্রসাধনী সামগ্রী আপনার সাথে নাও যেতে পারে। অথবা আপনার পছন্দের ব্র্যান্ড হয়তো নতুন কোনো প্রোডাক্ট বাজারে আনল, আপনি কিনবেন বলে মনস্থির করে নিলেন। হয়তো সেই নতুন প্রোডাক্ট আপনার দরকারী নাও হতে পারে। তাই কেনার আগে যাচাই করুন আদৌ নতুন প্রসাধন কি আপনার জরুরী বা দরকার আছে। যাচাই করে এবং সম্ভব হলে প্রথমে পরখ করে নিয়ে তবেই কিনুন।

৪. অফারে কিনুন বছরের অন্যান্য সময় কোনো ব্র্যান্ডের বিভিন্ন পণ্যের দাম বেশি থাকলেও একটা নির্দিষ্ট সময়ে তা কিছুটা কমে। কোম্পানি এটা করে ক্রেতাকে আকৃষ্ট করার জন্যে এবং তার বিক্রি বাড়ানোর জন্যে। কেনাকাটা সেই সময় করার চেষ্টা করুন। এছাড়াও বিভিন্ন ব্র্যান্ড তাদের মেম্বারশিপ কার্ড দিয়ে থাকে তার ক্রেতাদের। সেগুলোও আপনার জন্যে কাজের হতে পারে যদি আপনি কমবেশি একই ব্র্যান্ডের জিনিস শুধুমাত্র ব্যবহার করে থাকেন।

৫. প্রাকৃতিক মেকআপ বেছে নিন বাজার চলতি কসমেটিক্সের উপর ভরসা না করে অনেক সময় প্রাকৃতিক উপাদান দিয়েও নিজের রূপ জেল্লা বাড়াতে পারেন। পুরনো দিনে এত কসমেটিক্সের যোগান ছিল না। তখন ত্বকের যত্ন নিতে কিন্তু ভরসা ছিল প্রাকৃতিক উপাদানই। বিভিন্ন ফল বা ফুলের রস, বা কোনো প্যাক আপনার চুলের বা ত্বকের যত্ন একই ভাবে নিতে পারে যেভাবে আপনার রোজকার প্রসাধন নেয়। হয়তো কিছুটা সময় সাপেক্ষ ঠিকই, কিন্তু আপনার মেকআপের পিছনে খরচ বাঁচাতে এর ভূমিকা কিন্তু অনেকটাই।

Check Also

শীত তো এসেই গেল প্রায় – ত্বকের যত্নের জন্য কী ব্যবস্থা নিচ্ছেন?

শীত পড়া মানেই গোটা শরীরের ত্বক খসখসে হতে আরম্ভ করবে। উত্তুরে বাতাসে জলীয় বাষ্প প্রায় …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *