Home / Hair / পাকা চুলের হাত থেকে মুক্তি পান ছ’টি প্রাকৃতিক উপাদানের সাহায্যে

পাকা চুলের হাত থেকে মুক্তি পান ছ’টি প্রাকৃতিক উপাদানের সাহায্যে

ঘন কালো চুলের ফাঁকে রুপোলি ঝিলিক দেখলে মন খারাপ হয়ে যাওয়া স্বাভাবিক! পাকা চুলের হাত থেকে নিষ্কৃতি পেতে চুল রং করেন অনেকে। সত্যি বলতে পাকা চুল ফের কালো করার কোনও উপায় নেই, একমাত্র উপায় ডাই ব্যবহার করা। কিন্তু দিনের পর দিন চুলে হেয়ার ডাই ব্যবহার করলে চুল রুক্ষ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে, আবার অনেকের চুলে রং তেমন স্থায়ী হয় না। অনেকে আবার চুলে রাসায়নিক রং ব্যবহার করতেও চান না। এরকম ক্ষেত্রে আপনার ভরসা হয়ে উঠতে পারে কিছু ঘরোয়া টোটকা। এ সব টোটকা সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক এবং পাকা চুল ঢাকতেও খুবই কার্যকরী।

আমলা আর হেনার প্যাক
চুল রং করতে হেনার ব্যবহার তো প্রচলিতই, এবার তার সঙ্গে মেশান আমলকি আর কফির গুণ। একটা বাটিতে এক কাপ টাটকা হেনা বাটা নিন। তাতে তিন চাচামচ আমলা পাউডার আর এক চাচামচ কফি পাউডার মেশান। মিশ্রণটা খুব ঘন মনে হলে অল্প জল মেশাতে পারেন। এবার হাতে গ্লাভস পরে নিয়ে এই মিশ্রণটা অ্যাপ্লিকেটর ব্রাশ দিয়ে চুলের গোড়া থেকে ডগা পর্যন্ত লাগিয়ে নিন। পেস্টটা পুরো না শুকোনো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর সালফেট বিহীন শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। মাসে একবার করলেই পাকা চুলের মুখ দেখতে হবে না!

কালো চা
দু’ চাচামচ কালো চা পাতা এককাপ জলে মিনিট দুয়েক ফুটতে দিন। ফুটে গেলে আঁচ থেকে নামিয়ে সম্পূর্ণ ঠান্ডা করে ফেলুন। চা ঠান্ডা হয়ে গেলে জলটা ছেঁকে নিয়ে তা দিয়ে চুলটা পুরো ভিজিয়ে শাওয়ার ক্যাপ পরে এক ঘণ্টা রাখুন। তারপর ঠান্ডা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এরপর শ্যাম্পু করবেন না। দু’ সপ্তাহ অন্তর একদিন করতে হবে। পাকা চুল তো ঢাকা পড়বেই, কালো চায়ের গুণে চুলে বাড়তি চমকও পাবেন।

নারকেল তেল আর লেবু
দু’টেবিলচামচ নারকেল তেলের সঙ্গে এক টেবিলচামচ লেবুর রস মিশিয়ে চুলে মেখে নিন। সমস্ত চুলে আর স্ক্যাল্পে ঘষে ঘষে মাখতে হবে। হয়ে গেলে আধ ঘণ্টা রাখুন। তারপর সালফেট বিহীন শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন। সপ্তাহে দু’বার করলে পাকা চুলের পরিমাণ আর বাড়বে না।

কারিপাতা
একমুঠো কারিপাতা ধুয়ে পরিষ্কার করে সসপ্যানে দিয়ে তাতে তিন টেবিলচামচ নারকেল তেল যোগ করুন। এবার সসপ্যান আঁচে বসান। একটু পরেই সসপ্যানে একটা কালো আস্তরণ জমা হতে দেখবেন। আঁচ থেকে নামিয়ে তেলটা ঠান্ডা হতে দিন। ঠান্ডা হয়ে গেলে তেলটা স্ক্যাল্পে আর পুরো চুলে ভালো করে ঘষে ঘষে মেখে নিন। হয়ে গেলে এক ঘণ্টা রাখুন। তারপর সালফেট মুক্ত শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে নিন। কারিপাতা আপনার চুলের ফলিকলে মেলানিনের পরিমাণ অটুট রাখে, ফলে পাকাচুল বাড়তে পারে না। তা ছাড়া চুলের বাড়বৃদ্ধিও ভালো হয়।

আলুর খোসা
ছ’টা মাঝারি মাপের আলুর খোসা ছাড়িয়ে নিন। এবার দু’কাপ জলে আলুর খোসাগুলো দিয়ে আঁচে বসান। জলটা ফুটতে শুরু করলে একটু পরেই একটা ঘন স্টার্চের মতো মিশ্রণ তৈরি হবে। মিশ্রণটা আঁচ থেকে নামিয়ে ঠান্ডা হতে দিন, তারপর ছেঁকে খোসা থেকে তরলটা আলাদা করে নিন। এবার আগে চুলে শ্যাম্পু আর কন্ডিশনিং করুন। চুল ধুয়ে নিয়ে আলুর খোসা সেদ্ধ করা জলটা চুলে ধীরে ধীরে ঢেলে নিন। এরপর আর চুল ধোওয়ার দরকার নেই। স্টার্চের মতো দেখতে মিশ্রণটা চুলে পিগমেন্টের পরিমাণ বাড়িয়ে তোলে, ফলে চুল সাদা হয় কম।

কালো কফি
চুল রং করতে কফির ব্যবহার অনেকেরই জানা। কড়া করে এক পট কালো কফি তৈপি করুন। ঠান্ডা হয়ে গেলে কফিটা চুলে ঢেলে মাসাজ করুন। হয়ে গেলে 20 মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর ঠান্ডা জলে চুল ধুয়ে নিন। শ্যাম্পু করবেন না। নিয়মিত ব্যবহার করলে চুলে একটা গাঢ় বাদামি শেড পাবেন, সমস্ত সাদা চুলও ঢেকে যাবে।

Check Also

ত্বক দাগহীন, বলিরেখামুক্ত রাখতে আপনার বন্ধু হবে রক্তজবা

বাঙালির সঙ্গে জবাফুলের সম্পর্কটা খুব নিবিড়! পুজোপার্বণে জবাফুল লাগে, প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই টবে হোক, মাটিতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *