Home / বিউটি টিপস / নতুন করে কাজে লাগান পুরোনো মাস্কারার ব্রাশ

নতুন করে কাজে লাগান পুরোনো মাস্কারার ব্রাশ

মাস্কারা কিনেছিলেন বেশ অনেকদিন হল, পরতে গিয়ে দেখলেন শুকিয়ে ডেলা পাকিয়ে গিয়েছে ভিতরের তরল! কাজেই ফেলে দেওয়া ছাড়া আর উপায় নেই! পুরোনো মাস্কারা ফেলে দেওয়া নিয়ে কোনও দ্বিমত না থাকলেও মাস্কারার ব্রাশটা ফেলবেন না! বরং ধুয়ে মুছে যত্ন করে তুলে রাখুন ব্রাশটা! ভাবছেন কেন? আসলে পুরোনো একটা মাস্কারা ব্রাশ হাতের কাছে থাকলে নানান ছোটখাটো মেকআপ সমস্যা মিটিয়ে ফেলতে পারবেন সহজেই! ভুরু সুন্দর করে ব্রাশ করা থেকে শুরু করে চোখের পল্লব হাইড্রেট করার মতো নানা দরকারি কাজ সহজেই সেরে ফেলা যায় পুরোনো মাস্কারা ব্রাশ দিয়ে!

চট করে দেখে নিন পুরোনো মাস্কারা ব্রাশ দিয়ে কী কী কাজ করতে পারেন আপনি। তবে অন্য কাজে লাগানোর আগে ব্রাশটা ভালো করে ধুয়ে নিতে ভুলবেন না কিন্তু!

ঠোঁট এক্সফোলিয়েট করতে
যাঁদের ঠোঁট ফাটার সমস্যা রয়েছে, তাঁরা পুরোনো মাস্কারা ব্রাশ দিয়ে কোমলভাবে ঠোঁট এক্সফোলিয়েট করে নিতে পারবেন। প্রথমে ঠোঁটে পেট্রোলিয়াম জেলি বা অলিভ অয়েল লাগিয়ে নিন, তারপর মাস্কারা ব্রাশ দিয়ে বৃত্তাকারে আলতো ঘষে ঘষে ফাটা চামড়া আর মরা কোষ সব তুলে দিন।

নখের রুক্ষ কিউটিকল কোমল করতে
কিউটিকল যদি শুকনো হয়, তা হলে হাজার ম্যানিকিওর করেও হাত সুন্দর দেখাবে না। রুক্ষ কিউটিকলের সমস্যা সহজেই মেটাতে পারেন হাতের কাছে একটা পুরোনো মাস্কারা ব্রাশ থাকলে। প্রথমে নখে ভালো করে কিউটিকল রিমুভার ক্রিম মেখে নিন। কিউটিকল রিমুভার ক্রিম না থাকলে অলিভ অয়েল দিয়েও কাজ হবে। নখে মেখে দু’ থেকে তিন মিনিট রাখলে কিউটিকল নরম হয়ে যাবে। তারপর পরিষ্কার মাস্কারা ব্রাশ দিয়ে নখের বেসটা বাফ করে নিলেই ঝকঝকে হয়ে উঠবে নখ।

আইল্যাশ হাইড্রেট করতে
চোখের পল্লব ঘন করতে ক্যাস্টর অয়েল বা আমন্ড অয়েল লাগানোর পরামর্শ তো শুনেছেন! হাতের কাছে মাস্কারা ব্রাশ থাকলে সে কাজ অনেক সহজ হয়ে যাবে! পরিষ্কার মাস্কারা ব্রাশ তেলে ডুবিয়ে নিয়ে মাস্কারা পরার মতো করেই চোখের পল্লবে বুলিয়ে নিন। তেলটা সারা রাত লাগিয়ে রাখুন, সকালে উঠে ধুয়ে নিন। এক সপ্তাহ রোজ রাতে লাগালে তফাতটা বুঝতে পারবেন!

Check Also

কাঁচা সোনার মতো উজ্জ্বল ত্বক চাইলে ভরসা রাখতেই হবে কাঁচা হলুদে

রূপটানের কথা উঠলে একদম প্রথমদিকেই থাকবে হলুদের নাম। এমনিতেই যে কোনও উৎসবে পার্বণ হলুদ ছাড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *