Home / Hair / দিশা পাটনির মতো একঢাল চুল পাওয়ার জন্য কী কী খেতে হবে জানেন তো?

দিশা পাটনির মতো একঢাল চুল পাওয়ার জন্য কী কী খেতে হবে জানেন তো?

এক ঢাল সুন্দর, ঝলমলে চুলের মালিক হওয়ার স্বপ্ন দেখেন না, এমন কোনও মহিলা আছেন নাকি? কিন্তু মুশকিল হচ্ছে, আজকের তুমুল ব্যস্ততা, দূষণ, কেমিকাল ট্রিটমেন্ট, হিট স্টাইলিংয়ের অত্যাচার সামলে চুল সুস্থ রাখাটাই ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে। তার উপর যাঁরা দুমদাম নতুন ডায়েটিং শুরু করেন, তাঁদের চুল পুষ্টির অভাবেই কমজোর হয়ে পড়তে পারে। খাদ্যতালিকার প্রতি বিশেষ যত্নশীল হয়ে উঠুন। শারীরিকভাবে আপনি যতটা সুস্থ থাকবেন, ততই সুন্দর ও ঝলমলে থাকবে আপনার মাথার চুল – ঠিক দিশার মতো। তাই ভালো খাবার খাওয়ার ব্যাপারে জোর দিন। তবে মনে রাখবেন, আপনার চুল কেমন হবে, তার অনেকটাই নির্ভর করে জেনেটিক্সের উপরেও।  তবে সেই সঙ্গে সঠিক যত্ন নেওয়াটাও একান্ত প্রয়োজনীয়। ভালো মানের তেল ও শ্যাম্পু ব্যবহার করা জরুরি। ভেজা চুল আঁচড়াবেন না। সম্ভব হলে হিট আর কেমিকাল ট্রিটমেন্ট থেকে দূরে থাকুন। চুল ও স্ক্যাল্প পরিষ্কার রাখার উপরেও বিশেষ যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। তবে সেই সঙ্গে সুষম খাবারও খেতে হবে। ভুললে চলবে না যে আমাদের চুল যে কোষগুলি দিয়ে তৈরি, তার প্রধান উপাদান কেরাটিন নামক একটি প্রোটিন। তাই খাবারে প্রোটিনের অভাব হতে দেওয়া চলবে না একেবারেই।

ডিম: ডিম  বায়োটিন ও প্রোটিনের খুব সহজলভ্য ও সহজপাচ্য একটি উৎস। বায়োটিন কেরাটিনের নির্মাণের জন্য অত্যাবশ্যক। ডিম থেকে জ়িঙ্ক আর সেলেনিয়ামও মেলে।

পালং ও অন্য শাক: শরীরে আয়রনের ঘাটতি হলেও কিন্তু চুল ঝরে পড়ে। পালং ও অন্য নানা মরশুমি শাক থেকে মিলবে আয়রনের জোগান। আয়রনের অভাবে আপনার শরীরের সব কোষে যথেষ্ট মাত্রায় অক্সিজেন পৌঁছবে না, ফলে চুল ক্রমশ দুর্বল হয়ে পড়বে। তা ছাড়াও ফোলেট, ভিটামিন এ ও সি থাকে পালংশাকে। তাই মরশুমি এই সবজিটি রোজ খাওয়ার চেষ্টা করুন।

মাছ: মাছের ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড চুলের বৃদ্ধির সহায়ক। তা ছাড়াও মেলে প্রোটিন, সেলেনিয়াম ভিটামিন ডিথ্রি আর বি। যাঁরা মাছ পছন্দ করেন না তাঁরা অতি অবশ্যই বাদাম আর নানা বীজ রাখুন রোজের খাদ্যতালিকায়। আচমকা খিদে পেলে বাদাম খান, ফ্ল্যাক্স সিড বা কুমড়ো/ সূর্যমুখির বীজও খেতে পারেন। তা চুল ও ত্বক, দুইই সুস্থ রাখবে।

লেবুজাতীয় ফল: লেবুর মধ্যে থাকে প্রচুর ভিটামিন সি। যথেষ্ট ভিটামিন সি না খেলে কিন্তু আয়রন যথাযথভাবে শোষণ করতে পারবে না আপনার শরীর। চুলের গোড়া শক্তপোক্ত রাখার জন্য প্রয়োজন কোলাজেন, তার উৎপাদনের জন্য ভিটামিন সি একান্ত প্রয়োজনীয়।

গাজর: গাজরে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ মেলে। তা শরীরের প্রতিটি কোষের বৃদ্ধিতে সহায়ক। সেই সঙ্গে মাথার স্ক্যাল্পের সুস্থতাও নিশ্চিত করে ভিটামিন এ। ফলে শীতের মরশুমে রোজ গাজর খাওয়াটাও মাস্ট!

Check Also

কাঁচা সোনার মতো উজ্জ্বল ত্বক চাইলে ভরসা রাখতেই হবে কাঁচা হলুদে

রূপটানের কথা উঠলে একদম প্রথমদিকেই থাকবে হলুদের নাম। এমনিতেই যে কোনও উৎসবে পার্বণ হলুদ ছাড়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *